নাথান বম এখন কোথায়, কেএনএফের শক্তির উৎস কী

Uncategorized

অনটনের সংসারেই জন্ম এবং বেড়ে উঠেছিলেন নাথান বম। তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার স্নাতক হন। ইউরোপের কয়েকটি দেশেও গেছেন। বন্ধুদের কাছে দাবি করতেন, ইংল্যান্ড থেকে তিনি চারুকলায় ডিপ্লোমাও নিয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করার পর আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। তাতে ক্ষোভ জন্মে। ইংরেজি ভাষায় বইও লিখেছিলেন। পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। সেটাও লাভজনক হয়নি। একসময় একটি এনজিও করেন। এরই মধ্যে নানা মহলের সহযোগিতা নিয়ে সশস্ত্র সংগঠন গড়ে তোলেন। সেই সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) এখন পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের কাছে বিভীষিকায় পরিণত হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে, প্রত্যন্ত এক এলাকায় থেকে কীভাবে এই সশস্ত্র সংগঠন গড়ে তোলার রসদ পেলেন নাথান বম? তার শক্তির উৎস কোথায়? এখন তিনি কোথায়ইবা আছেন?

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআইয়ের এই যুগে ক্ষুদ্র সশস্ত্র গোষ্ঠীর লড়াই বা ইনসারজেন্সি যখন প্রায় হারাতে বসেছে, সেখানে খুবই ক্ষুদ্র একটা এলাকায় এ ধরনের তৎপরতা চালানো কতটুকু বিবেচনাপ্রসূত, তা নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন আছে। অনেকেই নাথান বমের উচ্চাভিলাষী চরিত্রের দিকেও দিকপাত করেন।

‘ছেলেটা যথেষ্ট উচ্চাভিলাষী এবং তথ্য অনেক ক্ষেত্রে হঠকারীও বটে।এটা অনেক আগে থেকেই টের পেতাম। কিন্তু যখন নতুন রাজ্য তৈরির আন্দোলনের নামে এসব সন্ত্রাসী কাজ শুরু করলে, বিষয়টা স্পষ্ট হলো আরও’—পার্বত্য চট্টগ্রামের সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) প্রধান নাথান বম সম্পর্কে কথাগুলো বলছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তাঁর দুই বছরের বয়সে বড় আরেক পাহাড়ি ব্যক্তি।

তিনি নাথানের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটে ভর্তিসংক্রান্ত প্রায় সব কাজ করতে সহায়তা করেছিলেন। একটি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর একজন শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটা প্রতিষ্ঠানে সুযোগ পাবেন পড়াশোনা করার, সেটা নিশ্চিত করতে যত সম্ভব সবকিছু সহযোগিতা করেন তিনি। তিনি আরও জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নাথানকে ভর্তির জন্য তৎকালীন উপাচার্য থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক প্রয়োজনের অতিরিক্ত সহযোগিতা করেন। ভর্তি হওয়ার পর নাথান একপর্যায়ে এই ব্যক্তির সঙ্গে আর তেমন কোনো যোগাযোগ রাখতেন না। কেএনএফ নামের সশস্ত্র সংগঠন গড়ার ঘটনা জানার পর তিনি লোক মারফত তাঁকে সাবধান করে দিলেও নাথান সেগুলোর দিকে কর্ণপাত করেননি।

নাথান বম পার্বত্য চট্টগ্রামের জনসংখ্যার বিচারে পঞ্চম বম জনগোষ্ঠীর সদস্য। এই জাতিগোষ্ঠীর প্রায় সবাই খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বী। বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলার এডেনপাড়া সড়কে নাথানের পৈতৃক নিবাস। পারিবারিক অবস্থা খুব ভালো ছিল না কখনোই। তারপরও এই পরিবার এবং জনসংখ্যায় কম একটি জাতিগোষ্ঠীর ভেতর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর পড়ার সুযোগ পাওয়া এলাকার অনেককেই গর্বিত করত।

নাথানের এলাকার অধিবাসী, সম্পর্কে নাথানের চাচা হন, এমন একজন বলছিলেন, ‘নাথান যে এত ভয়ানক একটা অবস্থানে চলে যাবে সেটা কখনো ভাবেননি। তার কিছু কর্মকাণ্ড উদ্ভট লাগত। শুনতাম এলাকার যুবকদের একত্র করে সে দল পাকাচ্ছে। শুরুতে খুব একটা পাত্তা দিইনি। কিন্তু যখন তার গতিবিধি একটু সন্দেহজনক মনে হলো, আমি ব্যক্তিগতভাবে তাঁকে অনুরোধ করেছিলাম, এই পথে না যাওয়ার জন্য। কিন্তু সে বড় ধরনের অর্থের লোভ পেয়েছিল। সেটাই তাঁকে শেষ করে দিল। এখন তার জন্য পুরো বম জাতির মানুষ একটা ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *