মালয়েশিয়াকাণ্ডে দোষীদের ছাড় দেয়া হবে না: প্রতিমন্ত্রী

বিশ্ব সর্বশেষ

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, যাদের কারণে মালয়েশিয়া গমনেচ্ছুদের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে। ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে।
মালয়েশিয়া কাণ্ডে দোষীদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনার পরামর্শ প্রতিমন্ত্রীর।

মহির মারুফ

মঙ্গলবার (৪ জুন) প্রেসক্লাবে বিদেশ ফেরত কর্মীদের আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের শুরুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

যারা মালয়েশিয়া যেতে ধোকার শিকার হয়েছেন তারা এজন্য সরকারকে দুষছেন। এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয় কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যা যা করা দরকার সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এখন মূল কাজ হচ্ছে দোষীদের খুঁজে বের করে বিচারের আওতায় আনা।

এর আগে একইদিনে মন্ত্রণালয়ের এক গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের নিয়োগানুমতি এবং জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) স্মার্ট কার্ড পাওয়ার পরও অনেক রিক্রুটিং এজেন্সি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (৩১মে) মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছে। এর কারণ চিহ্নিত করতে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব নূর মোহাম্মদ মাহবুবের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

যে সকল কর্মী নির্ধারিত সময়ে মালয়েশিয়া যেতে পারেনি আগামী ৮ জুনের মধ্যে প্রয়োজনীয় তথ্য (নাম, পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, রিক্রুটিং এজেন্সির নাম, পাসপোর্ট নম্বর, বিএমইটির স্মার্ট কার্ডের কপি এবং অভিযোগের স্বপক্ষে প্রমাণকসহ) দিয়ে ই-মেইলের (enquiry.committee.malaysia@gmai.com) মাধ্যমে অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন।

 

উল্লেখ্য, মালয়েশিয়া সরকারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, গত শুক্রবার (৩১ মে) পর্যন্ত দেশটিতে ৫ লাখ ২৬ হাজার ৬৭৬ জন বাংলাদেশি বাংলাদেশি পাঠানোর অনুমতি দেয়া হয়। কিন্তু বাংলাদেশ জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) ছাড়পত্র দেয় প্রায় ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৬৪২ জনকে। অজ্ঞাত কারণে বাদ দেয়া হয় ৩২ হাজার কর্মীকে।

কথা ছিল, জনপ্রতি ৭৮ হাজার ৯৯০ টাকা করে দেবেন কর্মীরা। এ খরচের ভেতর আছে: পাসপোর্ট খরচ, স্বাস্থ্য পরীক্ষা, নিবন্ধন ফি, কল্যাণ ফি, বিমাকরণ, স্মার্ট কার্ড ফি ও সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সির সার্ভিস চার্জ। আর ঢাকা থেকে মালয়েশিয়া যাওয়ার উড়োজাহাজ ভাড়াসহ ১৫টি খাতের খরচ বহন করবে নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান।

এ অবস্থায় তালিকাভুক্ত ৪ লাখ ৭৬ হাজার ৬৪২ জনের কাছ থেকে সিন্ডিকেট করে মালয়েশিয়ার আমিন নুর ও দেশের রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো হাতিয়ে নেয় নির্ধারিত ফি বাদে গড়ে পৌনে ৫ লাখ টাকা করে, যার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে ২২ হাজার কোটি টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *